শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০১:০৪ অপরাহ্ন

সিলেটে ‘ভয়ংকর’ শিলাবৃষ্টি

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৭৪ Time View

সিলেট ও সুনামগঞ্জে তাণ্ডব চালিয়েছে কালবৈশাখী ঝড়। এ সময় পড়েছে শিলাবৃষ্টিও। সর্বোচ্চ ২০৩ গ্রাম ওজনের শিলা পাওয়ার খবর দিয়েছে বাসিন্দারা। আর এতে গাড়ি, বাসা-বাড়ি ও পানির ট্যাঙ্ক ভেঙে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। নষ্ট হয়েছে একাধিক ফসলের মাঠ। এ সময় পথে থাকা চারজনের আহত হওয়ার খবরও পাওয়া গেছে। বাসিন্দারা বলছে, গত ১৫ বছরেও এমন শিলাবৃষ্টি দেখেনি সিলেটবাসী।

রোববার (৩১ মার্চ) রাত সাড়ে ১০টার দিকে ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে শুরু হয় বজ্রপাতও। কিছু সময় পর শুরু হয় বৃষ্টি। সঙ্গে পড়তে থাকে শিলাও। ১০-১৫ মিনিট স্থায়ী ছিল শিলাবৃষ্টি। আর এতেই ব্যাপক ক্ষতির মুখোমুখি হয়েছে সিলেটবাসী। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন সিলেট আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ সজিব।

আহত-

ঝড়ে এখন পর্যন্ত চারজন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। তাদের মধ্যে একজন সিলেটের ও বাকিরা সুনামগঞ্জের।

একজনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জনি চৌধুরী। তার নাম বিল্লাল আহমেদ (৪০)। তিনি সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা।

অন্যদিকে ঝড়ের সময় সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে যাওয়ার পথে শিল্পকলা একাডেমি সড়কে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় গাছে ভেঙে পড়লে তিন যাত্রী আহত হন। তাদের মধ্যে রয়েল আহমদ ও সাদ্দাম হোসেন নামের দুইজনের পরিচয় জানা গেছে। অপরজনের পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

সুনামগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) ওলি উল্লাহ বলেন, ‘ঝড়ের কবলে পড়ে একটি অটোরিকশায় থাকা তিন যাত্রী আহত হয়েছেন বলে খবর পেয়েছি। আমরা খোঁজ-খবর নিচ্ছি আর কোনো হতাহত আছে কি না।’

বাসাবাড়ি ও যানবাহনের ক্ষয়ক্ষতি-

হঠাৎ করেই কালবৈশাখী ঝড়ের সঙ্গে প্রচুর শিলাবৃষ্টি হওয়া বড় বড় শিলার আঘাতে শহরের অনেক বাসাবাড়ির জানালার ও গাড়ির কাঁচ ভেঙে গেছে। এ সময় রাস্তায় থাকা যানবাহনেরও বেশ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এর আগে সিলেটে এরকম শিলাবৃষ্টি দেখা যায়নি বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মন্তব্য করছেন অনেকেই। রাস্তায় চলাচল করা বিভিন্ন গাড়ির গ্লাসও ভেঙে যায় শিলার আঘাতে। কারও কারও বাসার টিনের চালা ফুটো ও জানালার কাঁচের গ্লাস শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আহত হয়েছেন খোলা জায়গায় ও রাস্তায় অবস্থান করা কেউ কেউ।

সিলেট নগরীর বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা জানান, প্রচণ্ড শব্দে মনে হয়েছিল ঘরের টিন ছিদ্র হয়ে যাচ্ছে। এ রকম বড় শিলাবৃষ্টি আগে কখনো দেখেননি।

সিলেট নগরীর টিলাগড় এলাকার বাসিন্দা মুহিবুর রহমান বলেন, ‘এমন শিলাবৃষ্টি আগে কখনো দেখিনি। শিলাখণ্ডের আকার অনেক বড় ছিল। শিলাবৃষ্টিতে আমাদের বাড়ির টিনের চাল এবং সামনে থাকা একটি অটোরিকশার কাঁচের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।’

ব্যবসায়ী দিদার আলম বলেন, আমার জানামতে গত ১৫-২০ বছরের মধ্যে এত শিলাবৃষ্টি হয়নি।

এদিকে হঠাৎ করে শিলাবৃষ্টি শুরু হওয়ায় সিলেটের রাস্তায় থাকা সাধারণ মানুষ, পথচারী ও ঈদের কেনাকাটায় যাওয়া লোকজন বিপাকে পড়েন।

সিলেট শহরের বাসিন্দা আল আমিন হোসেন বলেন, ‘হঠাৎ করে শিলা পড়তে থাকায় অনেকটা ভয় পেয়ে যাই। সড়কের মাঝে দাঁড়াব কোথায়! পরে তাড়াতাড়ি করে একটি দোকানের নিচের দাঁড়াই।’  

এদিকে বেশ কয়েকটি গাড়ির সামনের গ্লাস শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। চৌহাট্টা এলাকায় পার্কিং করে রাখা সিলেট জেলা পরিষদের সদস্য সুভাষ দাসের প্রাইভেটকারে শিলা পড়ে গাড়ির পেছনের কাঁচ ভেঙে গেছে।

ফসলের ক্ষয়ক্ষতি-

সিলেট ও সুনামগঞ্জে এখন মাঠে মাঠে বোরো ধানসহ নানান ফসল রয়েছে। আকস্মিক কালবৈশাখী ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে বোরোসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

আলম নামে এক কৃষক জানান, গত এক যুগেও এমন শিলাবৃষ্টি দেখেননি তিনি। মাঠে মাঠে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সেচসহ নানান প্রতিবন্ধকতায় বোরো মৌসুমে কৃষকরা দুশ্চিন্তায় থাকেন। এরমধ্যে শিলা বৃষ্টি কৃষকের দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে দিয়েছে কেবল।

লোডশেডিং-

শিলাবৃষ্টির সঙ্গে বজ্রঝড়ের কারণে সিলেট প্রায় ছয় ঘণ্টা বিদ্যুৎবিহীন ছিল। বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ বলছে, প্রবল ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে সিলেটের অনেক জায়গায় বৈদ্যুতিক লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হবার কারণে বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়। পরে ভোর ৪টার দিকে বিদ্যুৎ স্বাভাবিক হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর »

Advertisement

Ads

Address

© 2024 - Economic News24. All Rights Reserved.

Design & Developed By: ECONOMIC NEWS